single-phase-integrated-meter

সরকারি প্রকল্প প্রি পেইড মিটার স্থাপনে বাধা – বাস্তবায়নে ধীরগতি

Share with social media...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নতুন সরকার ঘটনার পরপরই বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে ।  ঢাকার আশেপাশের পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চলতি অর্থ বছরে ১০ লক্ষ প্রিপেইড মিটার লাগানো হবে।  সরকারী প্রকল্পের আওতায় মিটারগুলো লাগানোর কথা থাকলেও এলাকাবাসীর বাধার মুখে লাগাতে পারছেন না বিদ্যুৎ কর্মীরা ।  তারা এ কাজে সরকারী উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের সহযোগীতা চেয়েছেন ।

জানা গেছে, গ্রাহকগণ প্রিপেইড মিটার নিতে চান না । ইতিপূর্বে লাগানো মিটারগুলোতে সমস্যা থাকায় গ্রাহকগণের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে ।  তারা জানতে চান, এ কাজগুলো সরকারী প্রকল্পের আওতায় হয়ে থাকলে কেন নেই কোন পত্রিকায় প্রজ্ঞাপন, কেন নেই টিভি চ্যানেলে প্রচারনা, কেন এমপি চেয়ারম্যান এর পক্ষ থেকে নেই কোন নির্দেশনা  ।  একজন গ্রাহকের মতে,  সরকারী কাজ হলেতো টিভিতে দেখানোর কথা, আমরাতো সরকারী কাজগুলো টিভিতে দেখি, পত্রিকায় দেখি ।  পদ্মা সেতু হচ্ছে এটাও আমরা দেখছি, বাস্তবে এবং টিভিতে ।   কোন ধরনের প্রচারনা, নির্দেশনা ও বিজ্ঞাপন ছাড়া গ্রাহকগণ এ কাজকে কোনভাবেই গ্রহণ করছেন না ।   তাছাড়া মিটার স্থাপনের সময় মোটিভেশনের জন্য পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের কোন উর্ধতন কর্মকর্তাও থাকছেন না ।   পাশাপাশি মিটার স্থাপনে নিয়োজিত কর্মীদের নেই কোন প্রশিক্ষণ । তারা বলতে পারেন না কিভাবে মিটারগুলোতে ব্যালেন্স দেখতে হয়, রিচার্জ করতে হয় কিংবা অন্যান্য ফাংশনগুলো জানতে হয় । স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, লাগানো মিটারগুলোর জন্য পর্যাপ্ত রিচার্জ কেন্দ্র খোলা হয়নি।   ইতিপূর্বে স্থাপিত রিচার্জ কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত লোকবল নেই, ফলে রিচার্জ করতে গিয়ে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে  গ্রাহককে  ভোগান্তির শিকার হতে  হচ্ছে।   সাম্প্রতিক ঢাকার আশেপাশে প্রিপেইড মিটার স্থাপন করতে গিয়ে বিষয়টি উঠে এসেছে ।  বিশেষজ্ঞগণের মতে  কোনধরনের সচেতনতা তৈরী না করে এ ধরনের কার্যক্রম অনভিপ্রেত ।  এভাবে এ কার্যক্রম চলমান থাকলে গ্রাহক পর্যায়ে বিরুপ প্রভাব পড়বে, সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হবে এবং  বিদ্যুৎ বিভাগের নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ।   বাংলাদেশ পল্লী ‍বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান এর মাধ্যমে দেশের স্বনামধন্য টিভিচ্যানেলে প্রচারসহ স্থাপনযোগ্য মিটারসমূহের এলাকায় এমপি ও মন্ত্রীদের সহযোগীতা প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা । এ কাজে স্থানীয় প্রশাসন, চেয়ারম্যান, মেয়র ও জনপ্রতিনিধিদেরও সহযোগীতা পাওয়া যাচ্ছেনা বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ কর্মীরা ।   সাম্প্রতিক আলোর ফেরিওয়ালার কল্যানে দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে গ্রাহক উচ্ছাসিত হলেও মিটার গুলো খুলে আবার প্রি পেইড স্থাপন শুরু হওয়ায় গ্রাহকদের মাঝে অসন্তোষ দেখা গেছে। ঢাকার আশেপাশে ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ময়মনসিং, নরসিংদী ও গাজীপুরে চলতি বছরে প্রি পেইড মিটার স্থাপনের কথা রয়েছে, অবশিষ্ট মিটারগুলো পর্যায়ক্রমে সারা দেশে লাগানো হবে ।

খবর- নিজস্ব প্রতিবেদক ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *